রাজ্য

সুপ্রিম কোর্টে মুখ পুড়ল রাজ্যের, বাংলায় দেখানো যাবে ‘দ্য কেরালা স্টোরি’, মমতার নিষেধাজ্ঞায় স্থগিতাদেশ শীর্ষ আদালতের

মুক্তি পাওয়ার আগে থেকেই চর্চায় জড়িয়েছে পরিচালক সুদীপ্ত সেনের ছবি ‘দ্য কেরালা স্টোরি’। বাংলায় এই ছবি নিষিদ্ধ করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে সেই নিষেধাজ্ঞায় স্থগিতাদেশ জারি করল সুপ্রিম কোর্ট। শীর্ষ আদালতে বড় ধাক্কা খেল রাজ্য সরকার। বাংলায় এই ছবি দেখানো যাবে বলে সাফ জানিয়ে দিল আদালত।

বাংলার কোনও প্রেক্ষাগৃহে চলবে না ‘দ্য কেরালা স্টোরি’। গত ৮ই মে এমনই নির্দেশ দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য ছিল, এই ছবি দেখানো হলে অশান্তি ছড়াতে পারে। সেই কারণে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিলেন তিনি। মমতার সেই সিদ্ধান্ত নিয়ে বিশাল চর্চা শুরু হয়। তাঁর এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন ছবির নির্মাতারা।

সেই মামলার শুনানিতে আজ, বৃহস্পতিবার শীর্ষ আদালত জানায়, দেশের সমস্ত রাজ্যেই দেখানো হচ্ছে ‘দ্য কেরালা স্টোরি’। কোথাও থেকে কোনও অশান্তির খবর তেমন আসে নি। বাংলাতেও যে তিনদিন ছবিটি চলেছে,সে ক’দিনেও কোনও অশান্তি হয়নি। সেই কারণে মমতার নিষেধাজ্ঞার উপর স্থগিতাদেশ জারি করল সুপ্রিম কোর্ট।

সুপ্রিম কোর্টে ‘কেরালা স্টোরি’র নিষেধাজ্ঞা নিয়ে রাজ্য সরকার সমালোচিত হয়েছে। শীর্ষ আদালতের পর্যবেক্ষণ, এই ছবি নিষিদ্ধ করার কোনও যৌক্তিকতা নেই। প্রধান বিচারপতির কথায়, নির্দিষ্ট করে বাংলার কোথাও এই ছবিতে ঘিরে অশান্তি হলে সেখানে ছবিটি নিষিদ্ধ করা যেত। কিন্তু কোনও অশান্তি ছাড়া গোটা রাজ্যে ছবি নিষিদ্ধ করার কোনও যৌক্তিকতা খুঁজে পায়নি আদালত।

আদালতের কথায়, এই ছবি নিষিদ্ধ করে বাংলার মানুষের মৌলিক অধিকার খর্ব করা হচ্ছে। ‘কেরালা স্টোরি’ নিয়ে রাজ্য সরকার সুপ্রিম কোর্টে হলফনামা দিয়ে জানিয়েছিল, এই ছবির জন্য মহারাষ্ট্রে অশান্তি হয়েছে। কিন্তু ছবির প্রযোজকের আইনজীবীর পাল্টা যুক্তি ছিল, মহারাষ্ট্রে অশান্তি হলেও ছবিটি সেখানে নিষিদ্ধ করা হয়নি।

সুপ্রিম কোর্টের এই নির্দেশের পর এবার আর বাংলায় ‘দ্য কেরালা স্টোরি’ দেখায় আর কোনও বাধা রইল না। যারা এখনও এই ছবিটি দেখেন নি, তারা সহজেই এবার প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে দেখতে পারবেন এই ছবি। এই মামলার পরবর্তী শুনানি রয়েছে ১৮ই জুলাই।

সুপ্রিম কোর্টের এই নির্দেশ সম্পর্কে তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেন, “সুপ্রিম কোর্ট স্থগিতাদেশ দিলে রাজ্যের আর কোনও দায় থাকে না। রাজ্য অশান্তি এড়াতে আগে থেকে সতর্কতা অবলম্বন করেছে। সুপ্রিম কোর্ট স্থগিতাদেশ দেওয়ার পর এ বার কোথাও কিছু হলে সেটা আর রাজ্যের দায় নয়”।

রাজ্যের মন্ত্রী শশী পাঁজা এই প্রসঙ্গে বলেন, “সুপ্রিম কোর্টের স্থগিতাদেশের পর এ বার কী পদক্ষেপ করা হবে, মুখ্যমন্ত্রী সেই সিদ্ধান্ত নেবেন। যে কোনও মুখ্যমন্ত্রীরই তাঁর রাজ্যের মঙ্গলের কথা ভেবে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা আছে”।

Back to top button
%d bloggers like this: