রাজ্য

ক্রমেই পারদের পতন, দরজায় কড়া নাড়ছে শীত, শীঘ্রই জাঁকিয়ে শীত উপভোগ করবে বঙ্গবাসী

কার্তিক মাস শেষ হয়ে শুরু হয়ে গিয়েছে অগ্রহায়ণ মাস। এরই সঙ্গে সঙ্গে কমতে শুরু করেছে তাপমাত্রা। বাড়ছে হিমেল হাওয়ার রেশ। রাজ্যে জাঁকিয়ে শীত কবে পড়বে, তা নিয়ে এখন আলোচনা চলছে বঙ্গবাসীদের মধ্যে।

কী জানাচ্ছে হাওয়া অফিস?

আলিপুর আবহাওয়া দফতর সূত্রের খবর, আগামী ২৪ ঘন্টায় কলকাতার তাপমাত্রা থাকবে ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি। চলতি সপ্তাহের শেষের দিকে শহরের তাপমাত্রা সর্বনিম্ন২০ ডিগ্রির নীচে নেমে যাওয়ার সম্ভাবনা। পশ্চিমের জেলাগুলিতে তাপমাত্রা ইতিমধ্যে কুড়ি ডিগ্রির নীচেই রয়েছে। সপ্তাহান্তে সেই তাপমাত্রা ১৫ ডিগ্রিতে নামতে পারে। পশ্চিমবঙ্গের কম-বেশি জেলাগুতেই আগামী চার পাঁচ দিনে দুই থেকে তিন ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা কমতে পারে বলে খবর হাওয়া অফিস সূত্রে।

জানা যাচ্ছে, আজ, মঙ্গলবার আবার কালিম্পং ও দার্জিলিংয়ে হালকা সামান্য বৃষ্টি হতে পারে। দক্ষিণবঙ্গে তেমন কোনও সম্ভাবনা নেই। এখানে আকাশ পরিষ্কারই থাকবে। সকাল, সন্ধ্যে শীতের আমেজ বজায় থাকবে। সপ্তাহের শেষের দিকে দক্ষিণবঙ্গের তাপমাত্রা কিছুটা নামলেও, জাঁকিয়ে শীত পড়তে এখনও কিছুটা দেরি।

ফের পশ্চিমী ঝঞ্ঝা ঢুকছে

হাওয়া অফিস সূত্রে খবর, আগামী বৃহস্পতিবার ফের নতুন করে পশ্চিমী ঝঞ্ঝা ঢুকবে। এই মুহূর্তে বঙ্গোপসাগরে দুটি ঘূর্ণাবর্ত রয়েছে। এর সঙ্গে একটি অক্ষরেখাও রয়েছে। একটি ঘূর্ণাবর্ত রয়েছে দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তামিলনাডু উপকূল এলাকায় একটি ঘূর্ণাবর্ত  আর অন্যটি কোমোরিন এলাকায়।

সাধারণত, বর্ষা বিদায় নেওয়ার পর থেকেই ধীরে ধীরে বায়ুপ্রবাহের দিক পরিবর্তন হতে শুরু করে। বঙ্গোপসাগর থেকে শুষ্ক, উত্তুরে হাওয়া ঢুকতে থাকে রাজ্যে। কিন্তু বঙ্গোপসাগরে যদি কোনও নিম্নচাপ অবস্থান করে, তাহলে বাধা পায় উত্তুরে হাওয়া। যদিও এই মুহূর্তে তেমন কোনও বাধা নেই বলেই জানিয়েছে আবহবিদরা।

Back to top button
%d