দেশ

মধ্যযুগীয় বর্বরতা! সতীত্বের প্রমাণ দিতেই হবে, গরম তেলের মধ্যে হাত ডোবাতে বলা হল চার বাচ্চার মা-কে

চার সন্তানের মা তিনি। বয়স বছর ৫০। কিন্তু তাঁর চরিত্র নিয়েই সন্দেহ করেন তাঁর স্বামী। সতীত্বের প্রমাণ দেওয়ার জন্য গরম তেলে হাত ডোবানোর নির্দেশ দেন তাঁকে। ঘটনার কথা জানতে পেরেই ঘটনাস্থলে দ্রুত হাজির হন সরকারি আধিকারিকরা। তারাই উদ্ধার করেন ওই মহিলাকে।

কী ঘটেছে ঘটনাটি?

ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল, বৃহস্পতিবার অন্ধ্রপ্রদেশের চিত্তুর জেলার থাতিথপ্পু গ্রামে। ওই আদিবাসী অধ্যুষিত গ্রামের বাসিন্দা এক মহিলা যিনি চার সন্তানের মা। জানা গিয়েছে, মহিলার চরিত্র নিয়ে প্রায়শই সন্দেহ করতেন স্বামী। এই ঘটনা নিয়ে এর আগেও স্ত্রীকে মারধর করেছেন বলে অভিযোগ। দীর্ঘদিন ধরেই এই চলার পর ওই গ্রামের প্রাচীন রীতি মেনে সতীত্বের পরীক্ষা দিতে নামানো হয়েছিল ওই মহিলাকে।

গত বৃহস্পতিবার চিত্তুর জেলার ওই আদিবাসী অধ্যুষিত সকালেই ওই মহিলার সতীত্বের পরীক্ষার আয়োজন করা হয়েছিল। বলা হয়েছিল যে গরম তেলের মধ্যে হাত ডুবিয়ে নিজের সতীত্বের পরীক্ষা দিতে হবে ওই মহিলাকে। এ জন্য বড় একটি পাত্রে পাঁচ লিটার তেল গরম করা হয়। তা ফুল দিয়ে সাজানোও হয়েছিল। গ্রামের মাতব্বররাও হাজির ছিলেন সেখানে। সেখানে ভিড়ও জমেছিল এই সতীত্বের পরীক্ষা দেখতে।

তবে বরাত জোরে রক্ষা পেয়েছেন ওই মহিলা। এই সতীত্বের পরীক্ষা দেওয়ার খবর পৌঁছে যায় সরকারি আধিকারিকের কাছে। তাঁরা দ্রুত ঘটনাস্থলে এসে ওই মহিলাকে গরম তেলে হাত ডোবানো থেকে বিরত করেন।

জানা গিয়েছে, এই ঘটনা নিয়ে পুলিশে কোনও অভিযোগ দায়ের করা হয়নি। তবে পুলিশ জানিয়েছে, ওই সম্প্রদায়ের উপর নজর রাখা হচ্ছে। অন্যদিকে, পুলিশের তরফে এও জানানো হয়েছে যে ওই মহিলার স্বামী এবং গ্রামের মাতব্বরদের ডেকে কাউন্সেলিং করানো হয়েছে।

Back to top button
%d