রাজ্য

শিক্ষকদের ইচ্ছা অনুযায়ী নয়, প্রয়োজনে বদলি করা হবে দূরের স্কুলেও, শিক্ষক বদলি নিয়ে কড়া নির্দেশ দিল হাইকোর্ট

রাজ্যে শিক্ষক বদলির ক্ষেত্রে কড়া নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট। এবার শিক্ষক বদলির ক্ষেত্রে গাইডলাইন প্রযোজ্য হবে। এই আইন মোতাবেক যে কোনও শিক্ষককে যে কোনও জায়গায় বদলি করতে পারে শিক্ষা দফতর। রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেলের পরামর্শের পর এই সিদ্ধান্ত নিল উচ্চ আদালত।

এদিন বিচারপতি বিশ্বজিৎ বসুর মন্তব্য, “কোনও জঙ্গল আইন চলতে পারে না। যত শিক্ষক বদলির মামলা আছে এবার থেকে এই আইন প্রয়োগ করবেন। কলকাতার শূন্য ছাত্রের স্কুলের শিক্ষককে হাওড়ায় যেতেই হবে”। শিক্ষা দফতরকে নির্দেশ দেওয়ার সাতদিনের মধ্যে তা পালন করতে হবে। কোনও শিক্ষক যদি তা পালন না করেন, তাহলে তাঁর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলেও জানিয়েছে আদালত।

পুরুলিয়ার এক স্কুলের শিক্ষক বদলি মামলায় এবার কড়া পদক্ষেপ নিল হাইকোর্ট। গত মাসেই এই মামলার শুনানিতে মামলাকারীরা আদালতের তোপের মুখে পড়েন। পড়ুয়াদের শিক্ষার অধিকার নিয়ে সরব হন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। তিনি বলেন, “শিক্ষকদের বেতন-সহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা পাওয়ার অধিকার থাকলে, ছাত্রদেরও উপযুক্ত শিক্ষার অধিকার রয়েছে। এই আদালত ওই পড়ুয়াদের জন্য চিন্তিত”।

তিনি সেই সময় প্রশ্ন করেছিলেন যে ওই স্কুলে কতজন পড়ুয়া রয়েছে? আবেদনকারীর আইনজীবী জানান পড়ুয়ার সংখ্যা ৫৬ জন। এরপর বিচারপতি বলেন, “এখন ভালো করে ছাত্রদের পড়াতে বলুন। এখন আমি কোনও বদলির নির্দেশ দেব না। বিচারপতি বিশ্বজিৎ বসু এই বদলি মামলায় রাজ্যের স্কুলগুলিতে ছাত্র ও শিক্ষকের অনুপাত জানতে চেয়েছেন। আমিও চাইছি”।

এবার আজ, শুক্রবার বিচারপতি বিশ্বজিৎ বসুর এই মামলার শুনানিতে কড়া নির্দেশ যে প্রশাসনিক বদল গাইডলাইন মেনেই বদলি করতে হবে শিক্ষকদের। প্রয়োজন পড়লে দূরের স্কুলেও বদলি করা হতে পারে। শিক্ষকদের ইচ্ছা অনুযায়ী কিছু হবে না। এই নির্দেশ যাতে দ্রুত কার্যকর হয়, সেই নিয়ে শিক্ষা দফতরকে কড়া নির্দেশ দেন বিচারপতি।

Back to top button
%d bloggers like this: